খুলনা বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় বছরের সর্বোচ্চ শনাক্ত

newsup
  • আপডেট টাইম : May 30 2021, 10:32
  • 511 বার পঠিত

নিউজ ডেস্কঃ  খুলনা বিভাগে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি অব্যাহত রয়েছে। বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় ২৩২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। চলতি বছরে এটাই এক দিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত। এর আগে গত ১৯ এপ্রিল ২২০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল। নতুন ২৩২ জন নিয়ে বিভাগে শনাক্ত রোগীর সংখ্যাও ৩৪ হাজার ছাড়াল। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন পাঁচজন। আগের দুদিনও পাঁচজন করে মারা গেছেন।

খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক রাশেদা সুলতানা আজ রোববার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে সূত্রে জানা গেছে, বিভাগের ১০ জেলায় এ পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হিসেবে শনাক্ত হয়েছে মোট ৩৪ হাজার ৮৫ জন; মারা গেছেন ৬৩৮ জন। এর মধ্যে গত ৩০ দিনে ২ হাজার ৯২৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। একই সময়ে মারা গেছেন করোনায় সংক্রমিত ৬৬ জন।

২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে খুলনা জেলার ৫৩ জন (নগরেই ৪১ জন)। এ ছাড়া বাগেরহাটের ৭৮ জন, যশোরের ৫৭, সাতক্ষীরার ২৪, মেহেরপুর ও চুয়াডাঙ্গার ১ জন করে, ঝিনাইদহের ৫ জন ও কুষ্টিয়ার ১৩ জন রয়েছেন। এই সময় মাগুরা ও নড়াইলে কোনো করোনা রোগী শনাক্তের তথ্য নেই।

২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া পাঁচজনের মধ্যে যশোরের দুজন এবং কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুরের একজন করে রয়েছেন। বিভাগে এ পর্যন্ত মারা যাওয়া ৬৩৮ জনের মধ্যে খুলনা জেলার ১৭২ জন (নগরেই ১৩৬ জন), কুষ্টিয়ার ১১১, যশোরের ৮০, চুয়াডাঙ্গার ৬১, ঝিনাইদহের ৫৫, সাতক্ষীরার ৪৬, বাগেরহাটের ৪১, নড়াইলের ২৬, মাগুরার ২৩ এবং মেহেরপুরের ২৩ জন।

২৪ ঘণ্টায় বিভাগে করোনায় সংক্রমিত ব্যক্তিদের মধ্যে ৭৭ জন সুস্থ হয়েছেন। এ পর্যন্ত সুস্থ হলেন ৩১ হাজার ২৮০ জন। সুস্থতার হার প্রায় ৯২ শতাংশ। বর্তমানে বিভাগে করোনায় সংক্রমিত হয়ে বাড়িতে আর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ২ হাজার ১৬৭ জন। এর মধ্যে খুলনার ১০০ শয্যা করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৭০ জন।

খুলনা বিভাগের মধ্যে প্রথম করোনা রোগী পাওয়া যায় গত বছরের ১৯ মার্চ, চুয়াডাঙ্গায়। গত বছরের ২৩ জুলাই এ সংখ্যা ১০ হাজার এবং ১২ আগস্ট ১৫ হাজার ছাড়ায়। চলতি বছর ১ জানুয়ারি ২৫ হাজার এবং ২৬ মে সাড়ে ৩৩ হাজার ছাড়ায়। আজ ৩০ মে শনাক্ত ৩৪ হাজার ছাড়াল।

এরই মধ্যে খুলনায় করোনার ভারতীয় ধরনের সংক্রমিত ব্যক্তি শনাক্তের খবর পাওয়া গেছে। সব মিলিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন চিকিৎসক, স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তাসহ সবাই। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিশেষজ্ঞ কমিটি সাত জেলায় লকডাউনের সুপারিশ করেছে। ভারতের সীমান্তবর্তী জেলা না হয়েও ওই তালিকায় রয়েছে খুলনা জেলা।

খুলনার সিভিল সার্জন নিয়াজ মোহাম্মদ বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চলাই করোনা বাড়ার একমাত্র কারণ। সার্বিক বিষয় নিয়ে আজই স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের সভা আছে।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর