দোয়ারাবাজারে দোকান থেকে ডেকে নিয়ে ব্যবসায়ীকে হত্যা

newsup
  • আপডেট টাইম : June 05 2021, 10:08
  • 534 বার পঠিত
দোয়ারাবাজারে দোকান থেকে ডেকে নিয়ে ব্যবসায়ীকে হত্যা

নিউজ ডেস্কঃ  সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ ঢাকাদক্ষিণ-চন্দরপুর সড়ক বদলে যাচ্ছে। চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত সড়কটি সংস্কারের পাশাপাশি চলছে প্রশস্তকরণ। বর্তমানে ১২ ফুট প্রস্তের সড়কটি ১৮ ফুট প্রশস্ত করা হবে। এছাড়া, টেকসই ও দীর্ঘস্থায়ী করতে সড়কের দুর্বল অংশে আরসিসি ঢালাই দেয়া হচ্ছে। সাড়ে ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে উন্নয়ন কাজের প্রায় ২৫ ভাগ সম্পন্ন হয়েছে। পুরো কাজ আগামী নভেম্বর মাসের মধ্যে শেষ হচ্ছে বলে জানিয়েছেন গোলাপগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী মাহমুদুল হাসান। আগামী বুধবার সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি এ উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

জানা যায়, উপজেলার একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ঢাকাদক্ষিণ বাইপাস-সুনামপুর-চন্দরপুর সড়ক। গোলাপগঞ্জ উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ, বুধবারীবাজার, বাদেপাশা ও শরিফগঞ্জ ইউনিয়নের মানুষের যাতায়াতের প্রধান মাধ্যম এই সড়কটি। শুধু গোলাপগঞ্জ উপজেলারই নয়, পার্শ্ববর্তী বিয়ানীবাজার ও বড়লেখা উপজেলার মানুষেরা যাতায়াতের জন্য ঢাকাদক্ষিণ-চন্দরপুর সড়ক ব্যবহার করেন বলে জানান স্থানীয়রা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ঢাকাদক্ষিণ বাইপাস-চন্দরপুর পর্যন্ত সাড়ে ৬ কিলোমিটার সড়কটি চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যায়। সড়কের চন্দরপুর, সুনামপুর, রায়গড় অংশে বিটুমিন ও পাথর উঠে গিয়ে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্তের। চন্দরপুর ও সুনামপুর অংশে বড় বড় গর্ত মিনি পুকুরের আকার ধারণ করে।

স্থানীয় চন্দরপুর বাজারের ব্যবসায়ী জয়নাল আবেদীন সড়কটি সংস্কার কাজ শুরু হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, চন্দরপুর অংশের কাজ শেষ হয়েছে। সড়কের চন্দরপুর অংশে যেসব বড় বড় গর্তে গাড়ি আটকে যাওয়ার অবস্থা হতো, সেইসব অংশ আরসিসি ঢালাই হয়ে গেছে। ভালো কাজ হওয়ায় সড়কটির স্থায়িত্ব দীর্ঘমেয়াদী হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। কিছুদিন পূর্বের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, সড়কটি এতোই মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল যে সড়কের কথা মনে হলেই ভয় করতো।

স্থানীয় সিএনজি স্ট্যান্ডের সভাপতি মকবুল হোসেন বলেন, সড়কটি চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যাওয়ায় গাড়ি চালানোই কষ্টকর হয়ে গিয়েছিল। বড় বড় গর্তে পড়ে অনেকের গাড়ি নষ্ট হয়েছে। আবার যাত্রীরাও অনেক দুর্ভোগের শিকার হয়েছেন। অসুস্থ ও বৃদ্ধদের নিয়ে যাওয়ার সময় চালককে অনেক কসরত করে চালাতে হয়েছে। সড়কটির কাজ শুরু হওয়ায় তিনি সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, যতদিন প্রয়োজন হয় ততদিনই গাড়ি বন্ধ রাখা হবে, কিন্তু কাজ যেন ভালো হয়। যে অংশ ঢালাই দেয়া হয়েছে সেই অংশে এখনো গাড়ি বন্ধ রয়েছে। আগামী কিছুদিনের মধ্যে খুলে দেয়া হবে বলে তিনি জানতে পেরেছেন। তাছাড়া যেসব অংশে বড় বড় গর্ত ছিলো সেখানে ইতোমধ্যে বালি ও কংক্রিটের সংমিশ্রণ ফেলা হয়েছে। ফলে ঢালাই বা বিটুমিনের কাজ শেষ না হলেও মোটামুটি গাড়ি চালানো যাচ্ছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, সড়কটি মজবুত, প্রশস্ত ও দীর্ঘস্থায়ী করতে ১০ কোটি ৫৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে উন্নয়ন কাজ শুরু হয়েছে। সড়কের ভঙ্গুর এবং যেসব অংশে পানি জমে যায় সেসব অংশে আরসিসি ঢালাই দেয়া হচ্ছে। এছাড়া গাড়ি চলাচল সুগম করতে সড়কটি প্রশস্ত করা হচ্ছে। ১২ ফুট প্রস্থের সড়কটি এখন প্রশস্ত করে ১৮ ফুট করা হচ্ছে। এখন সড়কটি দিয়ে দুটি গাড়ি অনায়াসে যেতে পারবে ।

সড়কটির সংস্কার কাজ শুরু হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করে ঢাকাদক্ষিণের দত্তরাইল গ্রামের শিক্ষক আব্দুল জলিল বলেন, উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ঢাকাদক্ষিণ-চন্দরপুর রোড। অনেক দুর্ভোগ শেষে সড়কটির বৃহৎ সংস্কার কাজ শুরু হয়েছে। কাজ শেষ হলে গোলাপগঞ্জের ঢাকাদক্ষিণ, বুধবারীবাজার, বাদেপাশা, শরিফগঞ্জসহ বিয়ানীবাজার ও বড়লেখা উপজেলার মানুষ এর সুফল পাবেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা নাজিমুল হক লস্কর বলেন, উপজেলার সড়ক যোগাযোগসহ ব্যাপক অবকাঠামো উন্নয়ন করে যাচ্ছেন সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি। কিছুদিন পূর্বে তিনি ভার্চুয়ালি আমুড়া-শিকপুর-বিয়ানীবাজার সড়কের আমুড়া অংশের উন্নয়নের উদ্বোধন করেছেন।

সড়কটির উন্নয়ন কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে জানিয়ে উপজেলা প্রকৌশলী মাহমুদুল হাসান বলেন, সড়কটির ১৮ ফুট প্রশস্ত করা হচ্ছে এবং ভঙ্গুর ও জলাবদ্ধ অংশে আরসিসি ঢালাই দেওয়া হচ্ছে। আগামী নভেম্বর মাসের মধ্যে কাজ শেষ হবে বলে জানান তিনি।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর